বুধবার, ১৭ জানুয়ারি, ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ৪ মাঘ ১৪২৪ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
ফ্রান্স বাংলা প্রেস ক্লাবে’র ব্যানারে জামাতের প্রতিবাদ সভা  » «   ফরাসী পতাকার ৩ টি রং এর মানে কি?  » «   Victor Hugo এর সংক্ষিপ্ত জীবনী  » «   পানির উচ্চতা মাপার কাজে নিয়োজিত জুয়াভ  » «   রাইয়াদ আদ্দীন তিশান এর ১ম জন্মদিন উদযাপন  » «   দেশব্যাপী জামায়াতের হরতাল চলছে  » «   শাবি ছাত্রের ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার  » «   আজ বিশ্ব মা দিবস  » «   নির্বাচনী সহিংসতায় নিহত ৬  » «   সাংবাদিকদের জন্য নবম ওয়েজ বোর্ড গঠনের আহ্বান রওশনের  » «   সিলেট জেলা প্রেসক্লাবের নির্বাচন আজ  » «   নির্ঘুম রাতে ডাকাত আতঙ্ক এ ব্যর্থতা কার ?  » «   প্রচারণা শেষ : সিলেটের তিন উপজেলায় ভোটের লড়াই কাল  » «   জামায়াত হরতাল ডাকায় পিছিয়েছে এইচএসসি পরীক্ষা  » «   নিজামীর ফাঁসির রায় বহাল রাখায় সিলেটে আনন্দ মিছিল  » «  

নবীগঞ্জে গৃহবধুকে জ্বালিয়ে দেয়ার ঘটনায় থানায় মামলা, শাশুড়ী গ্রেফতার! স্বামী পলাতক

নিউজ ডেস্ক:
নবীগঞ্জের পল্লীতে যৌতুকের জন্য রোমানা বেগম নামে এক গৃহবধুকে ঘুমন্ত অবস্থায় তার বাবার বাড়িতে পাষন্ড স্বামী গায়ে পেট্রোল ঢেলে আগুন লাগিয়ে স্ত্রীর পুরো শরীর জ্বালিয়ে দেয়ার ঘটনায় গত শনিবার রাতে নবীগঞ্জ থানায় একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে। এর প্রেক্ষিতে ওই দিন রাতে থানা পুলিশ ওসমানী নগর থানা পুলিশের সহযোগিতায় রোমানার শাশুড়ী মায়া বেগম (৪৮) কে তার বাড়ি উত্তর সোনামপুর গ্রাম থেকে গ্রেফতার করেছে। গ্রেফতারকৃত মায়া বেগম ওই গ্রামের ছালিক মিয়ার স্ত্রী। তার বিরুদ্ধে যৌতুকের জন্য রোমানা বেগমকে মারপিট করে পিত্রালয়ে পাঠানোর অভিযোগ রয়েছে। এদিকে আগুনে দগ্ধ রোমানা ঢাকা বঙ্গবন্ধু মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের বার্ণ ইউনিটে মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ছে বলে তার পারিবারিক সুত্রে জানাগেছে।

জানা যায়, নবীগঞ্জ উপজেলার দেবপাড়া ইউনিয়নের ছিট ফরিদ পুর গ্রামের আব্দুর রহিমের কন্যা রোমানা বেগম (২৩) যৌতুকের নির্যাতনের জন্য তার বাবার বাড়ি এসেও রক্ষা করতে পারেনি নিজেকে। গত বুধবার রাতে তার পাষন্ড স্বামী নানু মিয়া (৩৫) ঘুমন্ত অবস্থায় পাষন্ড গায়ে পেট্রোল ঢেলে আগুন লাগিয়ে পালিয়ে যায়। এ সময় রোমানার আর্তচিৎকারে পরিবারের লোকজন জেগে উঠে দেখেন, মুহুর্তের মধ্যেই পেট্রোল ঢেলে লাগানো আগুনে পুড়ে ভষ্মীভূত হয়ে যায়। তাৎক্ষনিক ভাবে গৃহবধুকে উদ্ধার করে আশংকাজনক অবস্থায় সিলেট ওসমানি মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। তার অবস্থার অবনতি ঘটলে মুমুর্ষ অবস্থায় গত বৃহস্পতিবার রাত ৯ টায় তাকে ঢাকা বঙ্গবন্ধু মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের বার্ণ ইউনিটে প্রেরণ করা হয়। এ ব্যাপারে রোমানা বেগমের বাবা হাজী আব্দুর রহিম গত শনিবার নবীগঞ্জ থানায় ৩ জনের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাতনামা আরো ২/৩ জনকে আসামী করে একটি মামলা করেন। মামলা নং ৩০, তাং ২৯-০৮-২০১৫ইং। ওই দিন রাতে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে নবীগঞ্জ থানার ওসি (তদন্ত) গৌর চন্দ্র মজুমদারের নেতৃত্বে একদল পুলিশ ওসমানী নগর থানা পুলিশের সহযোগিতায় শাশুড়ী মায়া বেগমকে বাড়ি থেকে গ্রেফতার করে থানায় নিয়ে আসেন। ধৃত মায়া বেগমের বাড়ি ওসমানী নগর থানার সাদিপুর ইউনিয়নের উত্তর সোনামপুর গ্রামে। অপর আসামী রোমানা স্বামী ও শশুড় পলাতক রয়েছে। আগুনে ভষ্মিভূত রোমানার এক বছরের একটি কন্যা সন্তান রয়েছে। তার স্বামীর বাড়ি বালাগঞ্জ উপজেলার কালনীরচর গ্রামে। তারা বেশ কিছু দিন ধরে ওসমানী নগর থানার উত্তর সোনামপুর গ্রামে বসবাস করে আসছে। ঐ গ্রামের ছালিক মিয়ার পুত্র নানু মিয়াকে ভালবেসে দুইবছর আগে বিয়ে করে রোমানা। পরে স্বামী নানু ও শাশুড়ী মায়া বেগম যৌতুকের জন্য মারপিট করে যৌতুকের টাকার জন্য রোমানাকে বাবার বাড়ি ছিটফরিদপুর গ্রামে পাটিয়ে দেয়।

সর্বশেষ সংবাদ