বৃহস্পতিবার, ২৩ নভেম্বর, ২০১৭ খ্রীষ্টাব্দ | ৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৪ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
ফ্রান্স বাংলা প্রেস ক্লাবে’র ব্যানারে জামাতের প্রতিবাদ সভা  » «   ফরাসী পতাকার ৩ টি রং এর মানে কি?  » «   Victor Hugo এর সংক্ষিপ্ত জীবনী  » «   পানির উচ্চতা মাপার কাজে নিয়োজিত জুয়াভ  » «   রাইয়াদ আদ্দীন তিশান এর ১ম জন্মদিন উদযাপন  » «   দেশব্যাপী জামায়াতের হরতাল চলছে  » «   শাবি ছাত্রের ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার  » «   আজ বিশ্ব মা দিবস  » «   নির্বাচনী সহিংসতায় নিহত ৬  » «   সাংবাদিকদের জন্য নবম ওয়েজ বোর্ড গঠনের আহ্বান রওশনের  » «   সিলেট জেলা প্রেসক্লাবের নির্বাচন আজ  » «   নির্ঘুম রাতে ডাকাত আতঙ্ক এ ব্যর্থতা কার ?  » «   প্রচারণা শেষ : সিলেটের তিন উপজেলায় ভোটের লড়াই কাল  » «   জামায়াত হরতাল ডাকায় পিছিয়েছে এইচএসসি পরীক্ষা  » «   নিজামীর ফাঁসির রায় বহাল রাখায় সিলেটে আনন্দ মিছিল  » «  

আইএস’র হয়ে লড়াই করতে সিরিয়ায়, যৌনদাসী হয়ে মৃত্যু

NINTCHDBPICT000121758838নিউজ ডেস্ক :: মধ্যপ্রাচ্যের জঙ্গি গোষ্ঠী আইএস’র হয়ে লড়াই করতে সিরিয়ায় যাওয়া অস্ট্রিয়ান কিশোরীর পরিণতি জানা গেছে। কয়েকদিন পরই ইউরোপ থেকে সিরিয়ায় যাওয়া ওই কিশোরীকে যৌনদাসী বানায় আইএস। নতুন সদস্যদের মনোরঞ্জনের তাকে ‘উপহার’ হিসেবে ব্যবহার করা হয়। পরে পালানোর চেষ্টা করায় তাকে বেদম পেটালে তার মৃত্যু হয়। এ খবর দিয়েছে দ্য সান। আইএস’র বন্দিশালা থেকে পালাতে সক্ষম হওয়া তিউনেশিয়ার এক নারী এ স¤পর্কে তথ্য দেন। সামরা কেসিনোভিচ ও সাবিনা সেলিমোভিচ নামে অস্ট্রিয়ার দুই বোনের সঙ্গে একত্রে ছিলেন তিউনেশিয়ার এ নারী।
২০১৪ সালে সামরা (১৭) ও সাবিনা (১৫) ভিয়েনা থেকে নিখোঁজ হয়। পরিবারের জন্য রেখে যাওয়া একটি চিরকুটে লেখা ছিল: আমাদের খুঁজো না। আমরা আল্লাহ’র প্রতি আনুগত্য প্রদর্শন করবো। তার জন্য মৃত্যুবরণ করবো। বসনিয়ান বংশোদ্ভূত এ কিশোরীদ্বয় তুরস্ক হয়ে সিরিয়ায় প্রবেশ করে। এর আগে বসনিয়ার চরমপন্থী বক্তা এবু তেজমা ভিয়েনায় তাদের ব্রেইনওয়াশ করে বলে ভাবা হচ্ছে। সন্ত্রাসী গোষ্ঠীটিতে যোগ দেওয়ার পর আইএস যোদ্ধাদের সঙ্গে তাদের জোর করে বিয়ে দেওয়া হয়। কালাশনিকভ হাতে ও বোরখা পরিহিত এ দুই মেয়ের ছবি ব্যাপকভাবে প্রচারও করে আইএস। সদস্য সংগ্রহে ছবিগুলো কাজেও দিয়েছিল।
পালিয়ে আসা তিউনেশিয়ান ওই নারী ১৭ বছর বয়সী সামরার সঙ্গে একই ঘরে ছিল। সে জানায়, সামিরাকে জিহাদিদের সঙ্গে যৌনমিলনে বাধ্য করা হয়েছে। নতুন যোদ্ধাদের জন্য সামরা ও তাকে যৌন-উপহার হিসেবে বিবেচনা করা হতো। তিনি জানান, বেশ কয়েকবার পালানোর চেষ্টা করে সামরা। তবে সর্বশেষ চেষ্টার পর তাকে হাতুড়ি দিয়ে পেটানো হয়। আহতাবস্থায় তার মৃত্যু হয়।
গত বছর আইএস-এ যোগ দিতে সিরিয়ায় পালিয়ে যাওয়ার পর সামরার ছোট বোন সাবিনা টুইটারে লিখেছিল, ‘আমি এখানে মুক্ত। আমি আমার ধর্ম পালন করতে পারবো। ভিয়েনায় তা পারছিলাম না।’ তবে আইএস’র শক্ত ঘাঁটি আল-রাক্কায় লড়াইয়ের সময় সাবিনা মারা যায়। এরপরই নিজের পরিবারের কাছে লেখা এক চিঠিতে সামরা জানায়, আইএস’র নৃশংসতায় সে অসুস্থ। সে পালাতে চাইলেও পারছিল না। অস্ট্রিয়ান মিডিয়া জানাচ্ছে, আল রাক্কা থেকে পালানোর সময় ধরা পড়লে তাকে বেদম মার দেওয়া হয়। পরে তার মৃত্যু হয়। অস্ট্রিয়ান সরকার এখনও এ খবর নিশ্চিত করেনি।

সর্বশেষ সংবাদ