বুধবার, ১৭ জানুয়ারি, ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ৪ মাঘ ১৪২৪ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
ফ্রান্স বাংলা প্রেস ক্লাবে’র ব্যানারে জামাতের প্রতিবাদ সভা  » «   ফরাসী পতাকার ৩ টি রং এর মানে কি?  » «   Victor Hugo এর সংক্ষিপ্ত জীবনী  » «   পানির উচ্চতা মাপার কাজে নিয়োজিত জুয়াভ  » «   রাইয়াদ আদ্দীন তিশান এর ১ম জন্মদিন উদযাপন  » «   দেশব্যাপী জামায়াতের হরতাল চলছে  » «   শাবি ছাত্রের ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার  » «   আজ বিশ্ব মা দিবস  » «   নির্বাচনী সহিংসতায় নিহত ৬  » «   সাংবাদিকদের জন্য নবম ওয়েজ বোর্ড গঠনের আহ্বান রওশনের  » «   সিলেট জেলা প্রেসক্লাবের নির্বাচন আজ  » «   নির্ঘুম রাতে ডাকাত আতঙ্ক এ ব্যর্থতা কার ?  » «   প্রচারণা শেষ : সিলেটের তিন উপজেলায় ভোটের লড়াই কাল  » «   জামায়াত হরতাল ডাকায় পিছিয়েছে এইচএসসি পরীক্ষা  » «   নিজামীর ফাঁসির রায় বহাল রাখায় সিলেটে আনন্দ মিছিল  » «  

৩৭ বছর পর সীমান্তহাটে দেখা হলো মা-ছেলের

1260_b4নিউজ ডেস্ক ::
দীর্ঘ ৩৭ বছর পর বৃদ্ধ মা সৌর বালা ও ছেলে জগদীশ সূত্রধরের দেখা হলো ছাগলনাইয়া সীমান্তহাটে। বৃদ্ধা সৌর বালা ২ ছেলে ও স্বামীকে নিয়ে ফেনী সদর উপজেলার ছনুয়া ইউনিয়নের কাজীরদিঘি গ্রামে বাস করতেন। ১৯৭৯ সালে তার বড় ছেলে কাজের সন্ধানে ভারতের দক্ষিণ ত্রিপুরার সমরগঞ্জে যান। এরপর সেখানেই বিয়ে করেন। থেকে যান সেখানেই। ছেলেকে দেখতে বৃদ্ধার স্বামী হরিনাথ সূত্রধর ভারতে গিয়ে মারা যান। স্বামী মারা যাওয়ার খবর শুনে স্বামী ও ছেলেকে দেখতে সৌর বালাও সমরগঞ্জে যান।

সেখান থেকে আর বাংলাদেশে আসতে পারেননি। প্রথমে কয়েক বছর জন্মভূমি বাংলাদেশের কথা তাঁর খুব মনে পড়ত। বাংলাদেশে থাকা তার অপর ছেলের জন্য কান্নাকাটি করতেন। বড় ছেলেকে বলেতেন তাকে বাংলাদেশে পাঠাতে। কয়েক বছর দুই ভাইয়ের মধ্যে চিঠিপত্রের মাধ্যমে যোগাযোগ হত। এ অবস্থায় ১০-১২ বছর পর বৃদ্ধাকে জানানো হয়েছিল বাংলাদেশে তার ছেলে বাড়ি বিক্রি করে অন্যত্র চলে গেছে। কিন্তু ছোট ছেলের কথা কিছুতেই ভুলতে পারেননি বৃদ্ধা।

সব সময় ছেলে, প্রতিবেশী ও এলাকার কথা মনে পড়লেও বাংলাদেশে আসার সুযোগ হয়নি বৃদ্ধার। ছাগলনাইয়ার মোকামিয়া ও ভারতের শ্রীনগর সীমান্তে ভারত-বাংলাদেশের মধ্যে সীমান্তহাট চালুর কথা লোকমুখে শুনেছেন। অনেক বাংলাদেশী এবং ভারতীয়রা কাঁটাতারের বেড়ায় বিছিন্ন হয়ে থাকলেও সীমান্তহাট চালুর পর দু’দেশের প্রত্যন্ত এলাকা থেকে এসে স্বজনদের সঙ্গে সহজে দেখার সুযোগ পাচ্ছেন। এমন খবর শুনে নাড়ি ছেঁড়া ধন ছেলে জগদীশকে দেখার জন্য মন ছটফট করতে থাকে বৃদ্ধা সৌর বালার। অপরদিকে, ছেলে আর্থিক অনটনের কারণে পাসপোর্ট ভিসা নিয়ে ভারতে যেতে না পারলেও অনেকের কাছে শুনেছেন তার মা ও ভাই এখনো ভারতের সমরগঞ্জেই আছেন।

সীমান্তহাট চালুর পর কয়েক দফা হাটে এসে স্থানীয় লোকজনের কাছে মায়ের খোঁজ নিতে থাকেন। অবশেষে কিছুদিন আগে বৃদ্ধার এক প্রতিবেশীর মাধ্যমে মাকে সীমান্তহাটে আসার জন্য খবর দেয় জগদীশ। খবর পেয়ে হাটের দিন গুণতে থাকেন সৌর বালা। গত ৯ই ফেব্রুয়ারি দীর্ঘ ৩৭ বছর মা ছেলের মিলন হয় সীমান্তহাটে। এ সময় দুই জনের পরনেই ছিল সাদা ধুতি এবং হাতে চলার সঙ্গী লাঠি। মাকে দেখেই ছেলে জড়িয়ে ধরে কান্নায় ভেঙে পড়েন। আর ছেলেকে দেখেই বৃদ্ধা মা চিৎকার করে বলে ওঠেন, ‘ওরে জগদীশ এতদিন কোথায় ছিলি বাবা। কত রাত কেদেঁছি তোর জন্য।’ মাকে পেয়ে ছেলে জগদীশ বলে ওঠেন, মরার আগে তোকে একবার দেখার বড় আশা ছিল মা।

সর্বশেষ সংবাদ