বৃহস্পতিবার, ২৩ মে ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

সিলেটে ভোটের মাঠে ১৩ নারী



ওয়েছ খছরু:: সিলেটে ভোটের মাঠে ১৩ নারী প্রার্থী। তারা সরাসরি সাধারণ আসনে প্রার্থী হতে চান। এদের মধ্যে কেউ কেউ মাঠের নেত্রী। তাদের ঘিরে আলাদা কৌতূহল ভোটের মাঠে। কেউ কেউ পুরুষ প্রার্থীর সঙ্গে শক্ত প্রতিদ্বন্দ্বিতায় অবতীর্ণ হয়েছেন। বর্তমান সংসদের আছেন অনেকেই। এর মধ্যে স্বামীর মৃত্যুর পর উপনির্বাচনে জয়ী হয়ে এমপি হয়েছেন মৌলভীবাজারের সৈয়দা সায়রা মহসিন ও সুনামগঞ্জের জয়া সেনগুপ্ত। তারাও এবার প্রার্থী হতে লবিং চালাচ্ছেন। ইতিমধ্যে দলীয় মনোনয়ন প্রতীক কিনে তারা ভোটের লড়াইয়ে নামার প্রস্তুতি শুরু করেছেন।

সিলেটের ৬টি সংসদীয় আসনে এবার ৪ জন নারী সরাসরি এমপি পদে নির্বাচিত হতে ভোটের লড়াইয়ে নেমেছেন। রাজনৈতিক ব্যাকগ্রাউন্ডের ওপর ভরসা রেখেই তারা দলীয় ফোরামের কাছে মনোনয়ন চেয়েছেন। সিলেট-১ আসনে বিএনপি থেকে মহিলা দল নেত্রী ডা. নুরুন্নাহার বেগম মনোনয়ন কিনে দলের কাছে প্রার্থিতা চেয়েছেন। সিলেট-২ আসনে বিএনপির শক্তিশালী প্রার্থী এম ইলিয়াস আলীর স্ত্রী তাহসিনা রুশদীর লুনা। তিনি বিএনপির চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা। স্বামী এম ইলিয়াস আলী ২০১২ সালে গুম হওয়ার পর থেকে লুনাই ওসমানীনগর ও বিশ্বনাথের বিএনপির রাজনীতির হাল ধরেছেন। তার নেতৃত্বেই স্থানীয় সরকার নির্বাচনে বিএনপি ভোটের মাঠে চমক দেখিয়েছে। আর একক নেতৃত্ব থাকায় লুনার প্রতিপক্ষও দলের ভেতরে কেউ নেই। ইতিমধ্যে বিএনপির দলীয় মনোনয়ন ক্রয় করে তিনি জমাও দিয়েছেন। বিএনপি থেকে তাকে মনোনয়ন দেয়া হলে তিনি নির্বাচন করতে প্রস্তুত বলেও জানান।

সিলেট-২ আসনে জাতীয় পার্টি থেকে দলের মনোনয়ন চেয়েছেন জাতীয় মহিলা পার্টির কেন্দ্রীয় যুগ্ম সম্পাদক শিউলী আক্তার। এ আসনে বর্তমান এমপি জাতীয় পার্টির যুগ্ম মহাসচিব ইয়াহহিয়া চৌধুরী এহিয়া। এরপরও শিউলী আক্তার সরাসরি নির্বাচন করতে চান। তিনি দলীয় মনোনয়ন ক্রয় করে জমাও দিয়েছেন। বিশ্বনাথ ও বালাগঞ্জে রয়েছে শিউলী আক্তারের নিজস্ব বলয়। তাদের নিয়ে পৃথক অবস্থানে থেকে রাজনীতি করছেন শিউলী আক্তার। তিনি জানিয়েছেন, সিলেট-২ আসনে তিনি ২০০৮ সাল থেকে জাতীয় পার্টির মনোনয়ন চেয়ে আসছেন। এই আসন হচ্ছে জাতীয় পার্টির ঘাঁটি। সুতরাং তাকে দল থেকে মনোনয়ন দিলে জয় ঘরে তোলা সম্ভব। সিলেট-৬ গোলাপগঞ্জ-বিয়ানীবাজার থেকে বিএনপির মনোনয়ন চান বিএনপির কেন্দ্রীয় সদস্য অ্যাডভোকেট হাদিয়া চৌধুরী মুন্নী। এ আসনে বিএনপির হয়ে শক্তিশালী প্রার্থীরা দলের মনোনয়ন চেয়েছেন। মুন্নী এ আসন থেকে নির্বাচন করতে চান। দল থেকে মনোনয়ন দিলে তিনি নির্বাচন করতে প্রস্তুত রয়েছেন বলে জানিয়েছেন। সিলেটের রাজনীতিতে দীর্ঘদিন ধরে অ্যাডভোকেট মুন্নীর পদচারণা রয়েছে।

মৌলভীবাজার-৩ সদর ও রাজনগর আসনের বর্তমান এমপি সৈয়দা সায়রা মহসিন। তিনি সাবেক মন্ত্রী ও জনপ্রিয় নেতা সৈয়দ মহসিন আলীর সহধর্মিণী। মহসিন আলীর মৃত্যুর পর এ আসনের রাজনীতিতে নামেন সায়রা মহসিন। উপনির্বাচনে তিনি এমপি নির্বাচিত হন। সায়রা মহসিন এ আসনের বর্তমান এমপি হওয়ার কারণে তিনি মনোনয়ন চেয়েছেন। তার পক্ষে দলের নেতাকর্মীদের অবস্থান রয়েছে। এ ছাড়া স্বামী সৈয়দ মহসিন আলীর ভোট ব্যাংক এখনো সায়রার পক্ষে। এ কারণে এ আসনে জয় ঘরে তোলা সম্ভব বলে জানিয়েছেন নেতাকর্মীরা। এ আসনে বিএনপি থেকে মনোনয়ন চান সাবেক এমপি খালেদা রব্বানী। সিলেট ও মৌলভীবাজার বিএনপির পরিচিত মুখ খালেদা রব্বানী। তিনি সংরক্ষিত নারী আসনের এমপি ছিলেন। তার গ্রহণযোগ্যতাও রয়েছে। এ জন্য তিনি এবার বিএনপি থেকে এ আসনে মনোনয়ন চেয়েছেন। মৌলভীবাজার-২ আসন থেকে আরেক নারী প্রার্থী নেহার বেগম এবার জাসদ থেকে দলের মনোনয়ন চেয়েছেন।

হবিগঞ্জের রাজনীতিতে শক্তিশালী অবস্থানে রয়েছেন সংরক্ষিত মহিলা আসনের বর্তমান এমপি আমাতুল কিবরিয়া কেয়া চৌধুরী। পিতার পরিচয়ে রাজনীতিতে নেমে তিনি গত ৫ বছরে ভোটের মাঠে তার অবস্থান সুদৃঢ় করে তুলেছেন। এমনকি মাঠের রাজনীতিতে তিনি দক্ষতার প্রমাণ দেখিয়েছেন। নবীগঞ্জ ও বাহুবল আসন থেকে নির্বাচন করতে গত ৫ বছর ধরে প্রস্তুতি চালাচ্ছেন এমপি কেয়া চৌধুরী। নৌকার প্রচারণায় মাঠে থাকায় তার আলাদা গ্রহণযোগ্যতাও গড়ে উঠেছে। হবিগঞ্জ-৪ চুনারুঘাট ও মাধবপুর আসন থেকে এবার প্রার্থী হতে দলের কাছে মনোনয়ন চেয়েছেন রাজনীতির পরিচিত মুখ শাম্মী আক্তার। ২০০৮ সাল থেকে তিনি এ আসনে প্রার্থী হতে দলে লবিং চালাচ্ছেন। বর্তমানে এলাকায়ও তার জনপ্রিয়তা বেড়েছে। এ ছাড়া বিগত দিনে আন্দোলন ও সংগ্রাম করতে গিয়ে শাম্মী আক্তার মামলায় আক্রান্ত হয়েছেন। শাম্মী আক্তার বিএনপির প্রার্থী হতে এরই মধ্যে দলের কাছে মনোনয়ন চেয়েছেন। দল থেকে প্রার্থী দিলে তিনি নির্বাচনের জন্য প্রস্তুত বলেও জানান তার এলাকার ভোটাররা।

সুনামগঞ্জের রাজনীতিতে হঠাৎ করেই নেমেছিলেন জয়া সেনগুপ্ত। তিনি দিরাই-শাল্লা আসনের বর্তমান এমপি। স্বামী সুরঞ্জিত সেনগুপ্তের মৃত্যুর পর এ আসনে তাকেই মনোনয়ন দিয়েছিলো আওয়ামী লীগ। এরপর নির্বাচনে জয়লাভ করে এমপি হন। এ আসন থেকে এবার মনোনয়ন চেয়েছেন জয়া সেনগুপ্ত। স্বামী সুরঞ্জিতের ভোটব্যাংক তার পক্ষে থাকায় তিনি আশাবাদী হয়ে সরাসরি মাঠে নেমেছেন। এ আসনে তার বিরুদ্ধে শক্তিশালী পুরুষ প্রার্থীরাও মনোনয়ন চাইছেন। সুনামগঞ্জ-১ আসনে আওয়ামী লীগের টিকিট পেতে দীর্ঘদিন ধরে মাঠে কাজ করছেন শামীমা শাহরিয়ার। তাহিরপুর-জামালগঞ্জ-ধর্মপাশা আসনে এমপি হতে তিনি গ্রামে গ্রামে ঘুরেছেন। এজন্য তিনি ভোটারের কাছে পরিচিতি লাভ করেন। এ আসনে এমপি হতে তিনি ২০১৪ সালেও দলের কাছে মনোনয়ন চেয়েছিলেন। ওই সময় মনোনয়ন না পেলেও মাঠ ছাড়েন নি। এবার অবস্থান শক্ত করে দলের কাছে মনোনয়ন চেয়েছেন। শামীমা শাহরিয়ার এ আসনে দলীয় মনোনয়নের জন্য একাধিক পুরুষ প্রার্থীর সঙ্গে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। সুনামগঞ্জ-৪ আসনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন চেয়েছেন শাহানা রব্বানী। এ আসনে শাহানা রব্বানীর ব্যাপক পরিচিতিও রয়েছে।
সুত্রঃ মানবজমিন