বুধবার, ২১ অগাস্ট ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ৬ ভাদ্র ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

মৃত্যুর পরও একে অপরকে জড়িয়ে দুই ভাই!



নিউজ ডেস্ক:: চকবাজারে আগুন লাগার কিছুক্ষন পরই ফায়ার সার্ভিস কর্মীরা তাদের কাজ শুরু করেন। সময় তখন রাত তিনটা। ধ্বংসস্তূপ থেকে লাশ উদ্ধার করতে গিয়ে নিহত দুই ভাই অপু ও আলীর মরদেহ আলাদা করতে পারেননি ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের উদ্ধারকারী সদস্যরা। তারা দুজন একে অপরকে জড়িয়ে ছিলেন। এ অবস্থায়ই একটি বডি ব্যাগে (মরদেহ যে সাদা ব্যাগে করে বহন করা হয়) করে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়। হাসপাতালে পাঠানোর পর দেখা যায়, দুই ভাইয়ের মরদেহের মাঝে রয়েছে শিশু আরাফাতের মরদেহ।

জানা গেছে, সারাদিন কাজের শেষে রাতে দোকান বন্ধ করে বাড়ি ফেরার জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছিলেন ঢাকার চকবাজারে কর্মরত তিন ভাই অপু, আলী ও ইদ্রিস। ঐসময়ে এক বন্ধুর ফোন পেয়ে ছোট ভাই ইদ্রিস দোকানের চাবি বড় ভাইদের বুঝিয়ে দিয়ে বেরিয়ে যায়। পাশেই খেলা করছিল বড় ভাই অপুর তিন বছরের ছেলে ছোট্ট আরাফাত। তখনো হয়তো তারা বুঝতে পারেনি কিছুক্ষন পর কী হতে যাচ্ছে তাদের সাথে।

হঠাৎ বিকট শব্দে বিস্ফোরণ। চার পাশে আগুনের ভয়াবহতা। মুহুর্তেই ছড়িয়ে পড়ে আগুন। আগুনের লেলিহান শিখায় প্রাণ যায় দুই ভাই ও ছোট্ট শিশুটির।

আগুনের হাত থেকে বাঁচানোর জন্যই হয়তো দুই ভাই আরাফাতকে মাঝে রেখে একে অপরকে জড়িয়ে রেখেছিলেন বলে ধারণা করছেন ঢাকা মেডিকেলের চিকিৎসক ও উদ্ধারকারী ফায়ার সার্ভিসের সদস্যরা। একই পরিবারের এই তিন সদস্যের মরদেহ শনাক্ত করেছেন ছোট ভাই ইদ্রিস।

ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের মর্গে এসে মরদেহগুলো শনাক্ত করেন তিনি। স্বজন হারানোর শোকে ঢামেক মর্গে ঢুকরে কাঁদছিলেন ইদ্রিস।