বৃহস্পতিবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ৪ আশ্বিন ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

পাক-ভারত উত্তেজনা নিয়ে সিনেমা তৈরির লড়াই শুরু



আন্তর্জাতিক ডেস্ক:: ভারত-পাকিস্তানের উত্তেজনা। যুদ্ধ বাঁধে বাঁধে অবস্থা। ঘটনার শুরু গত ১৪ ফেব্রুয়ারি। ভারত নিয়ন্ত্রিত জম্মু কাশ্মিরের পুলওয়ামায় হামলা। এই কয় দিনে দেশ দুটির সীমান্তে যুদ্ধের প্রস্তুতি। এক দেশের বিমান অন্য দেশের সীমানায়। ভারতের এক পাইলটও পাকিস্তানিদের হাতে ধরা পড়লেন। এরই মাঝে এ ঘটনাগুলোকে নিয়ে সিনেমা তৈরির জন্য আবেদন করতে শুরু করেছেন প্রযোজকরা।

এর আগেও পাক-ভারত যুদ্ধ নিয়ে বলিউড এগিয়ে ছিল চলচ্চিত্র নির্মাণে। খোঁজ নিয়ে পাওয়া গেল এর আগে দুই দেশের যুদ্ধ নিয়ে বেশ কিছু সিনেমা নির্মিত হয়েছে ভারতে। যেখানে পাকিস্তানের সঙ্গে নানা যুদ্ধের গল্প উঠে এসেছে।

কারণ আর্মি, যুদ্ধ বা দেশপ্রেম ভারতীয় চলচ্চিত্রের বাজের এই সব বিষয়ের বিশেষ কদর রয়েছে। রোম্যান্টিক সিনেমার থেকেও এসব বিষয়ের গুরুত্ব মারাত্মক, যার প্রমাণ মিলেছে বহুবার। সাম্প্রতিক অতীতে উরি হামলা নিয়ে তৈরি সিনেমায় ভালো ব্যবসা করেছে।

সেই সব পরিসংখ্যান থেকেই পুলওয়ামা হামলা, এয়ার স্ট্রাইক কিনবা পাইলট অভিনন্দন ভার্তামানের জীবনী নিয়ে চলচ্চিত্র নির্মাণে মন দিয়েছে চলচ্চিত্র নির্মাতারা। পুলওয়ামা, বালাকোট এবং অভিনন্দন এই সব নামের স্বত্ব পাওয়া নিয়ে রীতিমতো লড়াই করছেন প্রযোজকরা। এমনই খবর প্রকাশ করেছে মুম্বইয়ের বিভিন্ন চলচ্চিত্র পত্রিকাগুলো।

পুলওয়ামা কাণ্ড এবং তার আগে বা পরে যে সকল ঘটনা ঘটেছে তা নিঃসন্দেহে উত্তেজক সিনেমার ভালো উপকরণ। আর সেই উপকরণ নিয়ে রান্না করতে উদ্যত হয়েছে নির্মাতারা। তবে কে এই সকল নামের স্বত্ত্ব পাবে তা এখনও চূড়ান্ত হয়নি।

ভারত-পাকিস্তানের যুদ্ধ নিয়ে কিছু সিনেমা

১৯৬৭ সালে মুক্তি পাওয়া ‘উপকার’, ১৯৭৩ ও ১৯৯৯ সালের ‘হিন্দুস্তান কি কসম’, ২০০৩ সালের ‘স্টাম্পড’, ২০১১ সালের ‘মৌসুম’, ২০১৮ সালের ‘রাজি’ সিনেমাতেও দেখা যায় ভারত-পাকিস্তান যুদ্ধের আবহ ও আমেজ।

এলওসি কার্গিল ১৯৯৯ সালের মে-জুলাই মাসে কাশ্মীরের কার্গিল জেলায় ভারত ও পাকিস্তানের মধ্যে সংঘটিত সশস্ত্র সংঘর্ষটি ইতিহাসে ‘কার্গিল যুদ্ধ’ নামে পরিচিত। এই যুদ্ধ নিয়ে বেশ কয়টি ছবি বলিউডে নির্মিত হয়েছে। তার মধ্যে অন্যতম ‘এলওসি কার্গিল’। ২০০৩ সালে ছবিটি পরিচালনা করেন জে পি দত্ত।

URI

২০০৪ সালে নির্মিত এই ছবিতে হৃতিকের সঙ্গে জুটি বেঁধেছিলেন প্রীতি জিনতা। আরও অভিনয় করেছেন অমিতাভ বচ্চন, ওম পুরিসহ অনেক তারকা।

ট্যাঙ্গো চার্লিপরিচালক মণি শঙ্করের এই ছবি সরাসরি যুদ্ধের ছবি না হলেও শক্রদের বিরূদ্ধে লড়তে লড়তে নিজেদের জীবনযুদ্ধের ছবি প্রকাশ্যে এনেছে ‘ট্যাঙ্গো চার্লি’। ২০০৫ সালে মুক্তি পাওয়া ছবিটি বেশ প্রশংসা পেয়েছিলো।

অজয় দেবগণ ও ববি দেওল অভিনীত এই ছবিতে সেনাদের সংগ্রামের কথা বলা হয়েছে। নিজের ভালবাসার মানুষগুলো থেকে আলাদা থাকার যন্ত্রণার অভিব্যক্তি ফুটে উঠেছে এই ছবিতে।

দ্য ঘাজি অ্যাটাক ১৯৭১ সালের মুক্তিযুদ্ধের সময়ে ৪ ডিসেম্বর পাকিস্তানি নৌ-বাহিনীর সাবমেরিন ‘পিএনএস ঘাজি’ রহস্যজনকভাবে ডুবে গিয়েছিল। ভারতীয় নৌ-বাহিনীর জাহাজ ‘আইএনএস রাজপুত’-এর কয়েকজন নেভি অফিসার পাকিস্তানি সাবমেরিনটি ডুবিয়ে দিয়েছিলেন। এ জন্য টানা ১৮ দিন সমুদ্রের তলদেশে থাকতে হয়েছিল তাদের।

সেই ঘটনা নিয়েই নির্মিত হয়েছে ‘দ্য ঘাজি অ্যাটাক’ ছবিটি। সিনেমাটি এই বছর ১৭ ফেব্রুয়ারি মুক্তি পায়। দুটি সাবমেরিনে সংগঠিত লড়াইয়ের গল্প দেখানো হয়েছে এই সিনেমায়। এতে মূল দুটি চরিত্রে অভিনয় করেছেন ‘বাহুবলি’র খল-অভিনেতা রানা ডাগুবাতি ও ‘পিঙ্ক’ ছবির নায়িকা তাপসী পান্নু।