শনিবার, ২৩ মার্চ ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ৯ চৈত্র ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

বাংলাদেশ ব্যাংক, সিলেট অফিসে বিদায়-বরণ অনুষ্ঠান



বাংলাদেশ ব্যাংক, সিলেট-এর নির্বাহী পরিচালক সৈয়দ তারিকুজ্জামান বলেছেন, কর্মক্ষেত্রে দায়িত্ববোধ নিয়ে কাজ করলে প্রতিষ্ঠানের সুনাম অর্জিত হয়। বাংলাদেশ ব্যাংকের মহাব্যবস্থাপক মো. সাজ্জাদ হোসেন বাংলাদেশ ব্যাংক সিলেট অফিসের সার্বিক উন্নয়নে অবদান রেখেছেন। এছাড়া সামাজিক, সাংস্কৃতিক এবং সাংগঠনিক পর্যায়ের কার্যক্রমেও তিনি ছিলেন অত্যন্ত আন্তরিক। দেশ ও জাতির জন্য আমাদেরকে আন্তরিকতার সাথে কাজ করতে হবে।

বাংলাদেশ ব্যাংক, সিলেট-এর মহাব্যবস্থাপক মো. সাজ্জাদ হোসেনের বদলী ও মহাব্যবস্থাপক মাকসুদা বেগমের সিলেট অফিসে যোগদান উপলক্ষে আয়োজিত বিদায়-বরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্য তিনি এসব কথা বলেন।

সোমবার বিকালে ব্যাংক সম্মেলন কক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন বাংলাদেশ ব্যাংক, সিলেট-এর মহাব্যবস্থাপক জীবন কৃষ্ণ রায়। বাংলাদেশ ব্যাংক, সিলেট-এর সর্বস্তরের কর্মকর্তা এবং কর্মচারীদের উদ্যোগে আয়োজিত অনুষ্ঠানে বিদায়ী অতিথির বক্তব্য রাখেন মহাব্যবস্থাপক মো. সাজ্জাদ হোসেন এবং বরণীয় অতিথির বক্তব্য রাখেন মহাব্যবস্থাপক মাকসুদা বেগম।

বাংলাদেশ ব্যাংক, সিলেট-এর যুগ্ম পরিচালক মোজতবা রুম্মান চৌধুরী ও যুগ্ম পরিচালক মো. শফিকুল ইসলামের যৌথ সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন উপমহাব্যবস্থাপক শামীমা নার্গিস, বাংলাদেশ ব্যাংক ক্লাব, সিলেট-এর সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ আলী আকতার, ব্যাংক অফিসার্স এসোসিয়েশন (ক্যাশ)-এর সভাপতি বিনয় ভূষণ রায়, বাংলাদেশ ব্যাংক সিবিএর সভাপতি মোফাখখারুল ইসলাম, বাংলাদেশ ব্যাংক কর্মচারী সংঘের সাধারণ সম্পাদক মো. আলমগীর। অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ ব্যাংক অফিসার্স কাউন্সিল-এর সম্পাদক রতেœশ্বর ভট্টাচার্য। অনুষ্ঠানের শুরুতে পবিত্র কোরআন থেকে তেলাওয়াত করেন বাংলাদেশ ব্যাংক মসজিদের পেশ ইমাম মাওলানা মো. আবুল কাশেম। অনুষ্ঠানের একেবারে শুরুতে অতিথিবৃন্দকে ফুল দিয়ে বরণ করা হয় এবং শেষে বিদায়ী অতিথিকে সম্মাননা ক্রেস্ট ও উপহার প্রদান করেন বাংলাদেশ ব্যাংকের সর্বস্তরের কর্মকর্তা- কর্মচারীবৃন্দ। অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ ব্যাংক সিলেট অফিসের সর্বস্তরের কর্মকর্তা -কর্মচারীরা উপস্থিত ছিলেন।

বিদায়ী অতিথির বক্তব্যে মহাব্যবস্থাপক মো. সাজ্জাদ হোসেন বলেন, কাজকে কঠিন কিংবা ভয় করে নয়, আনন্দ নিয়েই সম্পন্ন করার চেষ্টা করেছি। প্রতিষ্ঠানের স্বার্থে নিয়মশৃঙ্খলার ব্যাপারে সচেতন হওয়া উচিত। দেশ ও জাতির স্বার্থে আমাদেরকে আরো বেশি সততা, দক্ষতা ও আন্তরিকতার সাথে কাজ করতে হবে। বরণীয় অতিথির বক্তব্যে মহাব্যবস্থাপক মাকসুদা বেগম বলেন, আত্মসংশোধনের মাধ্যমে কাজ করতে হবে। সবাই মিলেমিশে কাজ করলে যেকোনো কঠিন সহজে সম্পন্ন করা যায়। ব্যাংকের সার্বিক কল্যাণে আমি সর্বাত্মক সহযোগিতা করবো।
সভাপতির বক্তব্যে মহাব্যবস্থাপক জীবন কৃষ্ণ রায় বলেন, আন্তরিকতা এবং দায়িত্ববোধ থাকলে যেকোনো সহজ সুনামের সাথে সম্পন্ন করা যায়। মো. সাজ্জাদ হোসেন তেমনই এক ব্যক্তিত্ব। তাঁর মধুর, অমায়িক এবং বিনয়ী ব্যবহার যেভাবে সবার মন কেড়েছে, তেমনি কর্মক্ষেত্রে তাঁর দক্ষতা সবাইকে উজ্জীবিত করেছে। – বিজ্ঞপ্তি