রবিবার, ১৫ সেপ্টেম্বর ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ৩১ ভাদ্র ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

নির্বাচনের ঠিক আগ মুহূর্তে বিজেপিতে যোগ দিলেন গম্ভীর



স্পোর্টস ডেস্ক:::: আগে থেকেই একটু চাঁছাছোলা ধরনের বক্তব্য দেয়ার অভ্যাস ছিল তার; কিন্তু সম্প্রতি কাশ্মীরের পুলওয়ামায় সন্ত্রাসী হামলার ঘটনার পর থেকে রীতিমত উদ্ধত বক্তব্য দিতে শুরু করেন ভারতীয় ক্রিকেট দলের সাবেক তারকা গৌতম গম্ভীর। রাজনৈতিক কিংবা দু’দেশের সরকারের পক্ষ থেকে যুদ্ধ বিষয়ক কোনো কথা-বার্তা না হলেও, টুইটারের মাধ্যমে রীতিমত যুদ্ধ ঘোষণা করে দিয়েছিলেন তিনি।

গৌতম গম্ভীর পাকিস্তান সম্পর্কে কেন এতটা উদ্ধত বক্তব্য দিতে শুরু করেছিলেন, তা নিয়ে অনেকেই বিশ্লেষণ করতে শুরু করেন। অধিকাংশেরই বক্তব্য, সামনে নির্বাচন, সুতরাং রাজনৈতিক অভিলাস কিংবা আকাঙ্খা থেকেই এমন বক্তব্য দিয়ে নিজের জনপ্রিয়তা বাড়ানোর কাজ করে নিচ্ছেন গম্ভীর।

শেষ পর্যন্ত সেটাই সত্যি হলো। নির্বাচনের ঠিক আগ মুহূর্তে এসে, শুক্রবারদিন ভারতের ক্ষমতায় থাকা দল বিজেপিতে যোগ দিলেন গৌতম গম্ভীর। এরই মধ্য দিয়ে নিজের আদর্শ এবং দর্শণকে বাস্তবে রূপ দিলেন তিনি।

Gambir-1

খেলা ছাড়ার পর সোশ্যাল মিডিয়ায় অত্যন্ত সক্রিয় গম্ভীর। সেখানে তিনি নিজেকে জাতীয়তাবাদী ভাবধারার হিসেবে পরিচিত করে তোলেন। ক্রিকেটের পাশাপাশি সমাজসেবামূলক কাজে প্রায়ই অংশ নিতে দেখা যায় তাকে। নিজের একটি স্বেচ্ছ্বাসেবী সংস্থাও রয়েছে তার। বিশেষ করে ভারতীয় সেনাবাহীনি নিয়ে গম্ভীরের অবস্থানই তাকে অনেক জনপ্রিয করে তোলে।

শুক্রবার ভারতের কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী অরুণ জেটলির হাত ধরে বিজেপিতে যোগদান করেন গম্ভীর। তাকে বিজেপিতে স্বাগত জানাতে তখন উপস্থিত ছিলেন কেন্দ্রীয় আইনমন্ত্রী রবিশংকর প্রাসাদ।

গম্ভীরের হাতে বিজেপির পতাকা তুলে দিয়ে অরুণ জেটলি বলেন, ‘ভারতকে দু’টি বিশ্বকাপ এনে দেওয়ার অন্যতম কারিগর গম্ভীর ক্রিকেটের মাঠে নিজের কার্যকরিতা প্রমাণ করেছেন। এবার রাজনীতির মাঠে নিজের আলাদা পরিচিতি তৈরি করতে চলেছেন।’

গম্ভীরকে দলের কার্মকর্তা হিসাবে বর্ণানা করলেও এবং লোকসভা নির্বাচনে দলের প্রচারে অংশ নেবেন বলে জানালেও এখনও পর্যন্ত তার ভোটে দাঁড়ানো প্রসঙ্গে কোনও মন্তব্য করেননি জেটলি। বিষয়টি তিনি দলের নির্বাচন কমিটির উপর ছেড়ে দেওয়ার কথা জানালেন তিনি। তবে শোনা যাচ্ছে দিল্লির কোনো কোন্দ্র থেকেই লোকসভা ভোটে লড়তে পারেন গৌতি।

Gambir-2

রাজনীতির বাইশগজে পা দিয়ে গম্ভীর বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির প্রভাবশালী নেতৃত্বে আনুপ্রাণিত হয়েই রাজনীতিতে আসার সিদ্ধান্ত নিই। বিজেপিতে আমাকে জায়গা করে দেওয়ার জন্য জেটলি স্যার, রবিশংকর স্যারকে ধন্যবাদ। দেশের স্বার্থে আমি সবসময় কাজ করতে চাই। আমি দলের প্রত্যাশা পূরণে নিজের সেরাটা দেওয়ার চেষ্টা করব।’

এর আগে সর্বভারতীয় এক সংবাদমাধ্যমে দেওয়া সাক্ষাৎকারে নিজের রাজনীতিতে আকৃষ্ট হওয়ার প্রসঙ্গে গম্ভীর জানিয়েছিলেন, ‘ক্ষমতার পিছনে দৌড়ানো আমার রক্তে নেই। সত্যি কথা বলতে কোনদিন রাজনীতিতে আসব, এমন কোনও সুপ্ত বাসনা কখনও ছিল না। সত্যিই যদি কোন দিনও রাজনীতির চৌকাঠে পা রাখতে হয়, সে ক্ষেত্রে আমার ক্রিকেটীয় কৃতিত্ব যেন বিবেচনা না করা হয়। মানুষ গম্ভীরকে দেশ গড়ার কারিগড় বলে মনে করলে তবেই যেন আমায় ভোট দেন।’