সোমবার, ২৬ অগাস্ট ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ১১ ভাদ্র ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

নিউইয়র্ক সংবর্ধনায় প্রবাসীদের দেশে বিনিয়োগের আহ্বান পররাষ্ট্রমন্ত্রীর: ড. মোমেন



নিউজ ডেস্ক:: গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের পররাষ্ট্রমন্ত্রী এবং জাতিসংঘে বাংলাদেশের সাবেক স্থায়ী প্রতিনিধি ড. একে আব্দুল মোমেন, এমপি ৭ এপ্রিল যুক্তরাষ্ট্র সফর উপলক্ষে নিউইয়র্কে যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসী ও আওয়ামী লীগ পরিবারের উদ্যোগে এক বিশাল সংবর্ধনার আয়োজন করা হয়।

যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা ড. প্রদীপ রঞ্জন করের সভাপতিত্বে এবং সাবেক ছাত্রনেতা যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের জনসংযোগ সম্পাদক কাজী কয়েছ আহমদের পরিচালনায় এ সংবর্ধনা অনুষ্ঠিত হয়।
সভার শুরুতে পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. একে আব্দুল মোমেনের জীবন ইতিহাস সারাংশ তুলে ধরা হয়। ৩৭ বছর বিশ্বের বিভিন্ন দেশে তার পেশাগত দায়িত্ব ও কর্মকাণ্ড বিশেষকরে জাতিসংঘের বাংলাদেশ মিশনে স্থায়ী প্রতিনিধি হিসেবে তিনিই দায়িত্ব পালনকালে দেশের সম্মান উঁচু স্থানে নিয়ে যাওয়ায় বিশেষভাবে প্রশংসিত হন।

সংবর্ধনা সভায় ড. একে আব্দুল মোমেন তার বক্তব্যে সরকারের বিভিন্ন সফলতা ও বাংলাদেশের বিশ্বয়কর উন্নয়নের কথা উল্লেখ করেন। এছাড়া বিগত নির্বাচনে প্রবাস থেকে তাকে সমর্থন ও সহযোগিতার জন্য কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন। বাংলাদেশ বিমানের নিউইয়র্ক চলাচলে কিছু জটিলতার কথা বলে উল্লেখ করে তিনি বলেন এ বিষয়ে কাজ চলছে, নতুন ৬টি বিমান বহরে যোগ হচ্ছে, তিনি আশাব্যক্ত করেন খুব শীঘ্রই নিউইয়র্ক রুট চালু হবে।

জাতীয় পরিচয়পত্র বিভিন্ন দেশে কনস্যুলেটের মাধ্যমে প্রদানের ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে বলেও তিনি উল্লেখ করেন। বাংলাদেশ এগিয়ে যাচ্ছে জননেত্রী শেখ হাসিনার নেত্বতে ২০২১ ও ২০৪১ এ লক্ষ্য অর্জনের কাজ এগিয়ে চলছে। দেশে বিনিয়োগের উওম পরিবেশ বিধায় তিনি প্রবাসীদের দেশে বিনিয়োগের আহ্বান জানান।

সংবর্ধনা সভায় যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহসভাপতি সৈয়দ বসারত আলীসহ অন্যান্যরা যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক কিছু বিষয় পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. একে আব্দুল মোমেনকে অবহিত করা হয় এবং জননেত্রী শেখ হাসিনার দৃষ্টিতে আনার আহ্বান জানানো হয়।

সংবর্ধনা সভায় বিশেষ ব্যক্তিদের মধ্যে উপস্থিত জাতিসংঘের বাংলাদেশ মিশনে স্থায়ী প্রতিনিধি মাসুদ বিন মোমেন, নিউইয়র্কে বাংলাদেশের কনসাল জেনারেল সাদিয়া ফয়জুন্নেছা, ডাঃ জিয়া উদ্দিন আহমদ, সাংবাদিক সৈয়দ মোহাম্মদ উল্লাহ, সম্পাদক ফজলুর রহমান, যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগ উপদেষ্টা ড. খন্দকার মনসুর, সাংবাদিক হাঁকিকুল ইসলাম খোকন, তোফায়েল আহমদ চৌধুরী, সাইফুল ইসলাম রহিম, সম্পাদক মণ্ডলীর আব্দুর রহিম বাদশাহ , শাহ মো. বখতিয়ার, মো. আলী সিদ্দিকী, এমএ করিম জাহাঙ্গীর, মিসবাহ আহমদ, ফরিদ আলম, সদস্য শরিফ কামরুল হীরা, সামছুল আবেদিন, কামাল উদ্দিন, আসাফ মাশুক, কায়কোবাদ খান, ইলিয়ার রহমান, আহমদ, সাংবাদিক হেলাল মাহমুদ, সিরাজুল ইসলাম সরকার, কানেক্টিকাট স্টেইট আওয়ামী লীগের সভাপতি জুনেদ এ খান, জিল্লু আহমদ, নিউইয়র্ক স্টেইট আওয়ামী লীগের সা. সম্পাদক শাহিন আজমল, মাহি আহমদ, নিউজার্সি আওয়ামী লীগের টিপু সুলতান বাংলাদেশ সোসাইটির সভাপতি কামাল আহমদ বিয়ানীবাজার সমিতির সভাপতি সৈয়দ মোস্তফা কামাল, জাতীয় পাটির ভারপ্রাপ্ত সভাপতি জসীম উদ্দিন চৌধুরী, জাসদের সভাপতি দেওয়ান সাহেদ চৌধূরী, মহিলা আওয়ামী লীগের সভাপতি শাহনাজ মমতাজ, রুমানা আক্তার, জেসমিন বোখারী ।স্বেচ্ছাসেবক স্বেচ্ছাসেবক লীগের সিনিয়র সহসভাপতি আশরাফ উদ্দিন, সা. সম্পাদক সুবল দেবনাথ, যুগ্ম সম্পাদক নাফিকুর রহমান তুরান, জাতীয় শ্রমিক লীগের আর আমিন, মনজুর চৌধুরী, কৃষকলীগের সা. সম্পাদক আলী আক্কাস, যুব লীগের সেবুল আহমদ, রিন্টু লাল দাস, রহিমুজ্জামান সুমন, মো. জাহিদুল, মাসুদ মোল্লা, মো. খসরু, যুক্তরাষ্ট্র ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি জয়নাল আবেদীন জয়, শেখ হাসিনা মঞ্চের জালাল উদ্দিন জলিল, ইঞ্জিনিয়ার মিজানুল হাসান, উলকত আলী, ড. ধনজয় সাহা, মিজানুর রহমান চৌধুরী, অধির সিকদার, হেলাল মাহমুদ, সিরাজ সরকার, ক্যাপ্টেন আবু বকর, আর আমীন, মিজানুল চৌধুরী, সুহান আহমদ টুটুল, নায়মুল, শেখ মখলু মিয়া, মো. নাদের, নরুউদ্দিন, মো. কামাল, দেলোয়ার, জালাল আহমদ, একে চৌধুরী প্রমুখ।