বুধবার, ১৯ জুন ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ৫ আষাঢ় ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

দফায় দফায় সংঘর্ষ, পশ্চিমবঙ্গে গুলিবিদ্ধ বিজেপি নেতা



নিউজ ডেস্ক: বহুল প্রতীক্ষার পর গতকাল অবসান হয়েছে ভারতের লোকসভা নির্বাচন নিয়ে সব জল্পনা-কল্পনা।

শুক্রবার রাজ্যের ক্ষমতাসীন তৃণমূল কংগ্রেস এবং ভারতীয় জনতা পার্টির (বিজেপি) নেতাকর্মীদের মধ্যে দফায় দফায় সংঘর্ষ ও গোলাগুলিতে বেশ কয়েকজন আহত হয়েছেন।

পশ্চিমবঙ্গের দুর্গাপুরের লাউদোহা এলাকার পাটশাওড়া গ্রামে বাড়িতে ঢুকে স্থানীয় বিজেপি নেতাকর্মীদের হামলার অভিযোগ করেছে স্থানীয় তৃণমূল কর্মীরা। গভীর রাতে তৃণমূল নেতাকর্মীদের বাড়িতে ঢুকে রড দিয়ে মারধর ও বাড়িতে থাকা নারীদের শ্লীলতাহানির অভিযোগ করেছে দলটির নেতাকর্মীরা।

তারা জানায়, রাতের অন্ধকারে তাদের বাড়িতে রড, শাবল ও ধারালো অস্ত্র নিয়ে হামলা চালায় বিজেপির নেতাকর্মীরা।

শুক্রবার ভোরের দিকে পাটশাওড়া গ্রামের স্থানীয় তৃণমূলের কর্মী প্রতিমা বাগদির বাড়িতে রড, শাবল ও ধারালো অস্ত্র নিয়ে হামলা ও ভাঙচুর চালায় বিজেপি সমর্থকরা। হামলা ও ভাংচুরের পর মারধর করা হয় তার পরিবারের নারীসহ অন্যান্য সব সদস্যদের।

স্থানীয় তৃণমূল কংগ্রেসের নেতাকর্মীরা জানায়, বিজেপির নেতাকর্মীরা তৃণমূল কর্মীর বাড়িতে হামলা চালিয়ে মারধর করে হাত ভেঙে দিয়েছে। ঘর থেকে টেনে বের করে নারীদের শ্লীলতাহানির চেষ্টাও করা হয়েছে।

এ ঘটনায় দুর্গাপুরের ফরিদপুর থানায় ইতিমধ্যেই একটি অভিযোগ দায়ের করেছে তৃণমূল। তবে ঘটনার সঙ্গে সংশ্লিষ্টতার অভিযোগ অস্বীকার করেছে স্থানীয় বিজেপি নেতাকর্মীরা।

এছাড়াও রাজ্যের বাঁকুড়ার শালতোড়া এলাকায় তৃণমূল ও বিজেপি নেতাকর্মীদের মধ্যে দফায় দফায় সশস্ত্র সংঘর্ষ হয়েছে। এ সময় বিদ্যুৎ দাস নামে এক স্থানীয় বিজেপি নেতা গুলিবিদ্ধ হয়েছেন বলে জানা গেছে। তার বাম কানে গুলি লেগেছে। পরে গুরুতর আহত অবস্থায় তাকে শালতোড়া ব্লক প্রাথমিক স্বাস্থ্য কেন্দ্রে ভর্তি করা হয়।

স্থানীয় তৃণমূল নেতা কালীপদ রায়ের নির্দেশে পুলিশের সামনেই গুলি চালিয়েছে ক্ষমতাসীন দলের কর্মীরা বলে অভিযোগ করেছে বিজেপি কর্মীরা। ঘটনার পর কালিপদ রায়কে গ্রেফতার ও শালতোড়া থানার ওসির বদলির দাবিতে থানা ঘেরাও করে তারা।

তবে গুলি চালানোর অভিযোগ অস্বীকার করেছেন অভিযুক্ত তৃণমূল নেতা কালীপদ রায়। বিজেপির কর্মীরা হঠাৎ করেই বাড়িতে হামলা চালিয়ে ব্যাপক ভাঙচুর করেছে বলে তিনি অভিযোগ করেন।

উল্লেখ্য, লোকসভা নির্বাচনে ৩০০-র বেশি আসন পেয়ে একক সংখ্যাগরিষ্ঠতা পেয়ে জিতেছে বিজেপি নেতৃত্বাধীন এনডিএ জোট। ৫৪২ আসনের মধ্যে ৩৪২ আসনে এগিয়ে রয়েছে এই জোট। অন্যদিকে দেশটির প্রধান বিরোধী দল কংগ্রেস নেতৃত্বাধীন ইউপিএ জোট পেয়েছে ৯১ আসন।

এদিকে পশ্চিমবঙ্গের মোট ৪২টি আসনের মধ্যে বিজেপি পায় ১৮টি আসন। গত নির্বাচনে এই রাজ্যে মাত্র দুইটি আসনে জয়ী হয়েছিল দলটি। দলের এমন উত্থানের পর আগামীতে রাজ্যের ক্ষমতায় আসার স্বপ্ন দেখছেন বিজেপি নেতাকর্মীরা।

The post দফায় দফায় সংঘর্ষ, পশ্চিমবঙ্গে গুলিবিদ্ধ বিজেপি নেতা appeared first on DAILYSYLHET.COM | SYLHET NEWS | BANGLA NEWS.